1. raselahamed29@gmail.com : admin :
  2. muktirbarta85@gmail.com : muktirbarta :
বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন
এই মুহুর্তে :

মালিহাদ ইউনিয়নবাসী মনে করেন, জননন্দিত ও সফল চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন নৌকার একজন দক্ষ মাঝি

নিজস্ব প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১
  • ৩৮৩ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

 

কুষ্টিয়া মিরপুর উপজেলার মালিহাদ ইউনিয়ন পরিষদের জননন্দিত ও সফল চেয়ারম্যান তথা মিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মাটি ও মানুষের নেতা আলমগীর হোসেন মুরব্বিদের সম্মান, সকল শ্রেনীর মানুষকে ভালবাসা ও ইউনিয়নবাসীদের বিভিন্ন প্রকার সেবা সহ ভাল কাজের মধ্য দিয়ে তার ইউনিয়নের সর্বস্তরের ভোটারদের হৃদয়ের মাঝে তার অবস্থান করে নিতে পেরেছেন। মালিহাদ ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনসাধারণ মনে করেন আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মালিহাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসেবে সফল ও জননন্দিত চেয়ারম্যান গণমানুষের নেতা আলমগীর হোসেনই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে নৌকার একজন দক্ষ মাঝি। মালিহাদ ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডের ২০ টি গ্রামের সাধারণ মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায় গরীব ও অসহায় মানুষের আস্থার প্রতীক আলমগীর হোসেন । তিনি মালিহাদ ইউনিয়নবাসীর বিপদের বন্ধু। তিনি নিজেকে কখনও চেয়ারম্যান হিসেবে গর্ব করেনা। তিনি মালিহাদ ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনসাধারণ সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলাফেরা করেন। ইউনিয়ন বাসী বিপদে আপদে যখন তাকে ডাকে তখনই তাকে কাছে পায়।তিনি ঘুম থেকে উঠে ফজরের নামাজ পড়ে তার ইউনিয়নের এক প্রান্তর থেকে আরেক প্রান্তরে তার ইউনিয়নের সকল শ্রেনীর মানুষের খোজ খবর নেওয়ার জন্য ছুটে বেড়ান। তিনি তার ইউনিয়নক কুষ্টিয়া মিরপুর উপজেলার মধ্যে একটি মডেল ইউনিয়ন হিসাবে গড়ে তুলতে দিনে রাত্রে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। এক সময় মালিহাদ ইউনিয়নে খুনাখুনি মারামারি লেগেই থাকত সাধারণ মানুষ খুবই ভয়ভীতির মধ্যে বসবাস করত।কেউ রাতে নিজের বাড়িতে ঘুমাতে পারত না।তিনি মালিহাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে আমাদের ইউনিয়নে মারামারি খুনাখুনি নেই। আমরা এখন খুবই শান্তির সাথে নিজ বাড়িতে ঘুমাতে পারি। আলমগীর হোসেন তার দক্ষতা দিয়ে আমাদের ইউনিয়ন থেকে বাল্যবিবাহ রোধ করতে সক্ষম হয়েছেন। তিনি গরীব ও অসহায় মেধাবী শিক্ষার্থীদের তার নিজেস্ব অর্থায়নে লেখাপড়ার খরচ বহন করেন । বর্তমানে একটি মানুষের মাঝে আতংক নাম হচ্ছে মাদক। মাদকের এই ভয়াল থাবা থেকে তার ইউনিয়নের যুব সমাজকে রক্ষা করতে আলমগীর হোসেন খেলাধুলার পাশাপাশি তার সামর্থ্য অনুযায়ী যুবকদের কর্মসংস্থানের ব্যাবস্থা করতে সক্ষম হয়েছেন। পাশাপাশি তার ইউনিয়ন নারীদের কর্মসংস্থানের জন্য সেলাই প্রশিক্ষণ সহ গরীব ও নারীদের জন্য সেলাই মেশিন ব্যাবস্থা করে দিয়েছেন। আমাদের ইউনিয়নের কেউ মারা গেলে তিনি শোনামাত্র নিজে এসে কাফন দাফনের তদারকি করেন। আলমগীর হোসেন মিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামেরুল আরেফিনের নির্দেশে বটতৈল ইউনিয়নের রাস্তা,স্কুল কলেজ, মসজিদ,গোরস্থান,ঈদগাহ মন্দির সহ তার ইউনিয়নের সকল ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। তিনি মালিহাদ ইউনিয়নের অসহায় মানুষের বাড়িতে টিউবওয়েল স্থাপন করেছেন। তিনি বটতৈল ইউনিয়ন পরিষদকে একটি দুর্নীতি মুক্ত পরিষদ হিসাবে গড়ে তুলেছেন। বটতৈল ইউনিয়নের সাধারণ জনগন আরো বলেন আমাদের ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, মাতৃকালীন ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা সহ সরকারের দেওয়া সকল অনুদান কোন প্রকার স্বজনপ্রীতি না করে মালিহাদ ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনসাধারণকে একত্রে করে সরকারের দেওয়া নীতি মালা মেনে অসহায় ও দুস্থ মানুষের মাঝে প্রদান করেন।আমরা কোন বিপদের সম্মুখীন হলে তিনি শুনা মাত্র দুরুত্ব এসে তা সমাধান করে দেন।তিনি এই করোনা মহামারির মধ্যে ইউনিয়নের সকল মানুষের ঘরে ঘরে নিজে গিয়ে সরকারের দেওয়া সকল সাহায্য সহ প্রাতিষ্ঠানিক সাহায্য পৌছায়ে দিছেন।তিনি নিজেস্ব অর্থায়নে প্রায় ১হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেছেন। এই শীতেও তিনি সরকারের দেওয়া শীতবস্ত্র বিতরণ সহ নিজেস্ব অর্থায়নে হাজার পরিবারের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করছেন।আলমগীর হোসেনের মত এরকম জনপ্রতিনিধি বাংলাদেশের সকল ইউনিয়নে থাকলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে সময় লাগত না। তাই সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার সহযোদ্ধা হিসেবে মালিহাদ ইউনিয়ন পরিষদের জননন্দিত ও সফল চেয়ারম্যান মালিহাদ ইউনিয়ন পরিষদ থেকে পুনরায় নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনের সুযোগ দেওয়ার জন্য মএ ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনসাধারণ আশা প্রকাশ করেন। নির্বাচন বিষয়ে মালিহাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন আমার ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনসাধারণকে সেবা করাই আমার মূল লক্ষ। আমি বাঁচার আগ মুহুর্ত পর্যন্ত আমি সব সময় আমার ইউনিয়নবাসীর পাশে থাকার চেষ্টা করব। ।আমার একটাই পরিচয় আমি আওয়ামী লীগ করি। আমার প্রানের সংগঠন আওয়ামী লীগ ও আমার নেতা কুষ্টিয়ার উন্নয়নের রুপকার মাহবুব উল আলম হানিফ যাকে নৌকা প্রতীক দেবে আমি আমার ইউনিয়ন বাসীকে নিয়ে তার পক্ষে কাজ করব। দল বা আমার নেতার বাইরে আমি কখনও কিছুই করব না। আমার নেতা মাহবুব উল আলম হানিফ ও আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্তকে আমি শ্রদ্ধা জানাই। আমি আমার দল বা আমার নেতার সিদ্ধান্তেই অটল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু

বিশ্বে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
© All rights reserved © 2020 dailymuktirbarta.com

Design & Developed By : Anamul Rasel

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.