1. raselahamed29@gmail.com : admin :
  2. muktirbarta85@gmail.com : muktirbarta :
মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৬:১৬ পূর্বাহ্ন
এই মুহুর্তে :
কুষ্টিয়ার মিরপুরে সন্ত্রাসী হামলায় প্রধান শিক্ষক আহত কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের অভিযানে ফেন্সিডিল সহ ০১ জন আসামী গ্রেফতা কুষ্টিয়ার মিরপুরে গৃহবধূকে আগুনে’ পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ গাজীপুরে কল্যানপুর দরবার শরীফে অগ্নিসংযোগ ভাংচুর লুটপাটের প্রতিবাদে মানববন্ধন পুনাক কুষ্টিয়া’র উদ্যোগে মা ও শিশু পূনর্বাসন কেন্দ্রের বৃদ্ধ মহিলাদের মাঝে উন্নতমানের খাবার ও চাউল বিতরণঃ কল্যানপুর দরবার শরীফে অগ্নিসংযোগ ভাংচুর লুটপাটের প্রতিবাদে মেহেরপুরে মানববন্ধন কুষ্টিয়ায় গলায় দড়ি দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা কুষ্টিয়া -ঝিনাইদহ মহাসড়কে চলছে মৃত্যের মিছিল,ঝড়ে গেলো ৪ বিড়ি শ্রমিকের প্রাণ সন্ত্রাসী টোকেন চৌধুরীর গ্রেফতার দাবি কল্যানপুর দরবার শরীফে অগ্নিসংযোগ ভাংচুর লুটপাটের প্রতিবাদে জেলায় জেলায় মানববন্ধন কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের অভিযানে গাঁজাসহ মিলন মন্ডল আটক

কুমারখালী অবৈধ সৈনিক ইটের ভাটায় কারণে জনজীবন স্থবির, একটি ওয়ার্ডে যখন দশ টি ইটের ভাটা

কুমারখালী প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২১
  • ১৯৮ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

অবৈধ সৈনিক ইটের ভাটার কারণে জনজীবন স্থবির।কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার যদুবয়রা ইউনিয়নের কেশবপুর – হাঁসদিয়া কাঁচা রাস্তাটির দৈর্ঘ্য প্রায় এক কিলোমিটার। কয়েকটি গ্রামের ৪০ থেকে ৫০ টি পরিবারের মানুষ এ রাস্তা দিয়ে উপজেলা ও জেলা শহরে যাতায়াত করেন। তবে কয়েক বছর ধরে এ সড়ক দিয়ে নিয়মিত শতাধিক বালু, মাটি, জ্বালানী ও ইট বোঝায় ড্রাম ট্রাক, ট্রলি, সেলোইঞ্জিত চালিত অবৈধ যান চলাচল করায় ধুলা ওড়ে। এতে কাঁচা রাস্তাটি বেহাল অবস্থা, তেমনি ধুলায় দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে আশেপাশের বাসিন্দাদের।

এলাকাবাসীর ভাত খেতে হয় ধুলা দিয়ে। ঘরের টিকে ধুলার স্তুপ। কিছু বললেই সৈনিক ইটের ভাটায় মালিকের ছেলে। সন্ত্রাসী রুবেলের অত্যাচার। কে এই রুবেল ! তার ক্ষমতার উৎস কোথায়। কেশবপুর গ্ৰামের মনোয়ার হোসেন মোনোর’ ছেলে এই রুবেল (২৬)। তার বিরুদ্ধে থানায় একটি সাধারণ ডায়রি যার নং ৯৯২, তারিখ ২১ এপ্রিল। সাধারণ মানুষ কে ভয় ভীতি প্রদর্শন করবার কারণে। সৈনিক ইটের ভাটায় কারণে জনজীবন স্থবির এই বিষয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের একটি টিম ঘটনা স্থলে গেলে তাদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। সাংবাদিকদের ওপর হামলা করবার উদ্ধত হয়।
পরিবেশ বিপর্যয়ের মুখে কুমারখালী উপজেলার যদুবয়রা ইউনিয়নের কেশবপুর ৪ নং ওয়ার্ড। গড়াই নদীর তীরে গড়ে তোলা হয়েছে অবৈধ দশটি ইটভাটা। এ,কে,বি ব্রিকস মালিক আমিরুল ইসলাম বাবু, সৈনিক ব্রিকস, মোঃ আঃ করিম, জে,এন, ব্রিকস, জে,এন ব্রিকস,সামছুল সাগর, এস,আর,বি, আরিফুল ইসলাম, মহুয়া ব্রিকস, আনোয়ার হোসেন, আরিফুল ইসলাম ইটের ভাটা, । এই ইটভাটা র’ মালিক গন গ্ৰাম জুড়ে প্রায় ১ শত ৫০ বিঘা ফসলি জমি লিজ নিয়ে ইটের ভাটা তৈরি করেছে। বছর- বছর ইটের ভাটা বাড়ছে এই ওয়ার্ডে ! প্রতিবছর এই ওয়ার্ডে ইটের ভাটা নির্মাণ করা হচ্ছে কেমন করে!! ইটের ভাটায় নেই কোন অনুমোদন। সব কয়টি ভাটায় পাশেই লোকালয় ও কৃষি জমি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। গাছ কেটে খড়ি বানিয়ে এসব ইটভাটাগুলোতে ইট পোড়ানোর হচ্ছে। খরচ সাশ্রয়ের জন্য সরকারি নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে অনেকেই নির্ভয়ে প্রকাশ্যেই পোড়াচ্ছে কাঠ। এসব ভাটাগুলো পড়েছে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় ও ভাটার ধোঁয়ায় আশপাশের পরিবেশ মারাত্মকভাবে দূষিত হচ্ছে।ফসলি জমি গিলে খাচ্ছে, ইট ভাটা। বর্ষার পানি জমি থেকে নেমে যাওয়ার পর থেকে যত্রতত্র পুকুর খনন ও ইটভাটা ফসলি জমি সাবাড় করে ফেলছে। এটা দিন রাত চললেও দেখার কেউ নেই। জেলা প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদন ছাড়াই একটি ওয়ার্ডে গড়ে উঠেছে ১০ টি ইটের ভাটা।

কোনো নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে এসব ভাটায় ইট তৈরিতে আশেপাশের গ্রামের ফসলি জমির মাটি ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে গত এক যুগে এলাকায় শত শত একর ফসলি জমি নষ্ট করে শতাধিক পুকুর খনন করা হয়েছে। প্রশাসনের নীরবতায় প্রতিবছরই পুকুর খননের সংখ্যা বেড়ে উজাড় হচ্ছে ফসলি জমি। ইটভাটার কালো ধোঁয়ায় বায়ু দূষণ অতিমাত্রায় বেড়ে যাওয়ায় ক্রমাগত জনস্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ছে। এছাড়া প্রধান সড়কের সাথে একাধিক ইটভাটা হওয়ায় চলাচলকারী যাত্রীদের প্রতিনিয়ত দুর্ভোগ পোহাতে হয়। তবে কেউই তা কর্ণপাত না করে ইটভাটা চালু রেখেছে।জানা যায়, ইট প্রস্তুত ও ভাটা (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০১৩ অনুযায়ী কৃষিজমি বা পাহাড়-টিলা অথবা যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ব্যতীত মৌজা পুকুর বা খাল-বিল বা খাঁড়ি বা দিঘী বা নদ-নদী বা হাওর-বাওড় বা চরাঞ্চল বা পতিত জায়গার মাটি ব্যবহার নিষিদ্ধ। প্রধান সড়কের পাশে, জনবসতি এলাকায়, কৃষিজমি, বন ও জলাভূমির এক কিলোমিটারের মধ্যে ইটভাটা স্থাপনও বে আইনি। এমনকি উপজেলা ইউনিয়ন বা গ্রামীণ সড়কে ভারী যানবাহনে ইট বা ইটের কাঁচামাল পরিবহন করাও অপরাধ বলে গণ্য হবে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, এক ওয়ার্ডে দশটি ইটভাটা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকারক বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। এসব ইটভাটার কর্মকাণ্ডে জড়িতরা বেশির ভাগই প্রভাবশালী হওয়ায় অনেকটা দেখেও না দেখার ভান করে আছেন স্থানীয় প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তর। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কয়েক গজের মধ্যে ইটভাটা। এগুলোতে প্রক্যাশে কাঠ পোড়ানো হয়। স্থানীয় কৃষক রবিউল বলেন, ইটের ভাটার কারণে আমার বেগুন চাষ, কলা চাষ করতে খুব সমস্যা হচ্ছে । ইটের ভাটা কাঠ পুড়ানোর ছায় কারণে বেগুন ও কলা ফলন ভালো হচ্ছে না। এই অবৈধ ইটের ভাটা, কেউ বন্ধ করতে তৎপর নয়।
এসব ইটভাটার তাপে নারিকেল গাছের ফল ছোট হয়ে গেছে। গাছগুলো লাল হয়ে যাচ্ছে। লোকালয়ের মধ্যে থাকা ভাটায় ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে কৃষকের ফসলের। মাঝে মাঝে পরিবেশ অধিদপ্তরের লোকজন আসেন। কিন্তু তারা চলে যাওয়ার পরপরই ভাটা আবার চালু হয়ে যায়। তা ছাড়া বেশির ভাগ ইটের ভাটায় ব্যবহার করা হচ্ছে কম উচ্চতার টিনের চিমনি। ইট ভাটার ধোঁয়ায় আশপাশের পরিবেশ মারাত্মকভাবে দূষিত হচ্ছে।
এই সম্পর্কে যদুবয়রা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম বলেন, কয়েকটি ইটের ভাটা ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করেছেন। বেশিরভাগ ইটের ভাটা কোন আইন-কানুন মানে না। এই বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর প্রযোজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে এমন আশা আমার। কুষ্টিয়া পরিবেশ অধিদপ্তর উপ পরিচালক আতাউর রহমান জানান, এই বিষয়ে আমরা যে কোন সময় অভিযান চালাবো। পরিবেশ অধিদপ্তরের নিয়ম মেনে ইটের ভাটা চালাতে হবে’ নয় তো ইটের ভাটায় বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান চলবে। কুমারখালী উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা রাজিবুল ইসলাম খান বলেন, অবৈধভাবে যারা ইটের ভাটা তৈরি করেছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। পরিবেশবাদীদের দাবি কোন ছাড় পত্র ছাড়াই” কুমারখালী উপজেলার দিনের পর” দিন যে ভাবে ইটের ভাটা তৈরি হচ্ছে তাতে করে অচিরেই পরিবেশ বিপর্যয় দেখা যেতে পারে।

রুবেলের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়রি এবং সাংবাদিকদের সঙ্গে অশোভনীয় আচরণ করবার কারণে কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মজিবুর রহমান জানান, রুবেলের বিরুদ্ধে একটি সাধারণ ডায়রি পেয়েছি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

© All rights reserved © 2020 dailymuktirbarta.com

Design & Developed By : Anamul Rasel

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.